আটা খাওয়া কি ভালো নাকি ময়দা?


পিজা, পাস্তা, নুডলস, বার্গার, ডোনাট, কেক, পেস্ট্রি, লুচি, পরোটা, মোগলাই, সিঙ্গারা এই সবেরই মূল উপাদান হলো ময়দা। কি??

1.প্রস্তুত প্রণালী:

  • আটা-

আটা এবং ময়দা বানানোর প্রক্রিয়া আসলে ভিন্ন। গম পিষে তৈরি করা হয় আটা। এতে গমের বীজের সঙ্গে তার খোসাও পিষে ফেলা হয়। এ কারণে আটার রং অনেকটা বাদামী হয়। যখন আটা তৈরী হয় তখন তাতে আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় উপদানগুলি মজুদ থাকে। যেমন ফাইবার, এই ফাইবার থাকার কারণে আটা দিয়ে তৈরী খাবার সহজ পাচ্য হয়। এছাড়া ফাইবার আমাদের হজমে সাহায্য করে, মেটাবলিসমকে বাড়িয়ে তোলে এছাড়া কনস্টিপেশনের সমস্যা হতে দেয় না। এছাড়া এই ফাইবার আমাদের শরীরে কোলেস্টেরল এর মাত্রা বাড়তে দেয়না।

  • ময়দা-

কিন্তু ময়দা বানাতে আটাকে পরিশোধিত করা হয়। আলাদা করা হয় খোসা। এ কাজটি কয়েক দফা করলেই ময়দা মেলে।ময়দাকে 'অল পারপাসস ফ্লাওয়ার' বলা হয়। এর সুন্দর শুভ্র চেহারা ও মসৃণতা আনার জন্যে রাসায়নিক উপাদান দিয়ে ব্লিচ করা হয়। এই কারণে ময়দা দেখতে সাদা ধবধবে হয়।

2.শরীরে এনার্জি প্রদান-

  • আটাতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন বি১, ভিটামিন বি ৩, ভিটামিন বি ৫ বর্তমান। এগুলি প্রত্যেকটি আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এগুলি শরীরে এনার্জি প্রদান করে এছাড়া নতুন রক্তকোষের জন্ম দেয়।
  • ময়দাতে এই সমস্ত জরুরি ভিটামিন প্রায় সমস্তই নষ্ট হয়ে যায়। ফলত ময়দা আমাদের শরীরের কোনো উপকারেই লাগে না।

3.রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা / গ্লাইসেমিক ইনডেক্স

ময়দা "গ্লাইসেমিকক ইনডেক্সে" আটার অনেক ওপরে অবস্থান করে। এই ইনডেক্সে যারা ওপরে অবস্থান করে সে সব খাবার রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। এর ফলে ইন্সুলিন কম মাত্রায় তৈরী হয়। ফলত আমাদের ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনাকে ত্বরান্নিত করে। এছাড়া ময়দা আমাদের খিদেকে বাড়িয়ে দেয়। এটি আমাদের শরীররে মেদ জমার একটি অন্যতম কারণ এর ফলে আমাদের ওজন বৃদ্ধি পায়। এই কারণে ডায়াবেটিক রোগীদের আটার রুটি খেতে বলা হয়ে থাকে।

4.কি উপাদান পাওয়া যায় ?

  • আটায় থাকে অ্যামাইনো এসিড এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এগুলো দেহের কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালনায় সহায়তা করে। উদ্বেগ, ঘুম না আসা, মাথাব্যথা এবং বিষণ্নতা সারাতে এই উপাদানগুলো বেশ কাজ করে।
  • ময়দা অতিরিক্ত মাত্রায় অ্যাসিডিক। কারণ ময়দা তৈরি করার সময় জরুরি নিউট্রিশনস ও ভিটামিন গুলি বেশিরভাগ মাত্রায় নষ্ট হয়ে যায় এবং একে অ্যাসিডক প্রকৃতির করে তোলে। যার ফলে এটি আমাদের শরীরে বর্তমান ক্যালসিয়ামকে ক্ষয় করতে থাকে, ফলত আমাদের শরীরে হাড়গুলির ঘনত্ব কমে যেতে থাকে। তাই ময়দা জাত দ্রব্য বেশি মাত্রায় খেলে আর্থারাইটিস এছাড়া আরো নানা ধরনের রোগের জন্ম দেয়।

সাধারণ ময়দা ব্যবহৃত হয় কেক, কুকি, পাস্তা, নুডলস, মাফিন এবং নানরুটি বানাতে। আর রুটি, পুরি এবং ডেজার্ট বানাতে লাগে আটা।

  • এই সব জানার পর আপনার কি মনে হয়? কোনটি আমাদের খাওয়া উচিত?
1787 Views